এনজিও কর্মীদের কিস্তি আদায়ের চেষ্টায় বিয়ে ভাঙল তরুণীর

বাগেরহাটে বিয়ের আসরে ঋণের কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এক তরুণীর বিয়ে ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ‘নবলোক পরিষদ’ নামের এক এনজিও সংস্থার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে।

সোমবার ফকিরহাটের সদর ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় ওই তরুণীর মা ইয়াসমিন বেগম ফকিরহাট মডেল থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে ইয়াসমিন বেগম জানান, তিনি একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী ও অসহায় নারী। তার স্বামী সরোয়ার শেখ একজন দিনমজুর। অভাবে পড়ে তিনি ‘নবোলক পরিষদ’ নামের স্থানীয় একটি এনজিও থেকে কিছু টাকা ঋণ নেন, যা নিয়মিত পরিশোধও করছিলেন। করোনাকালে সমস্যা হওয়ায় কয়েকটা কিস্তি তিনি দিতে পারেননি। সম্প্রতি তিনি কাজের উদ্দেশ্যে ঢাকায় যান এবং প্রায় এক সপ্তাহ আগে মেয়ের বিয়ের জন্য বাড়িতে আসেন।

তিনি আরো জানান, গ্রামবাসীর সহায়তায় গত ২৮ ডিসেম্বর মেয়ের বিয়ের আয়োজন করেন। খবর পেয়ে বিয়ের দিনই এনজিওর লোকজন বাড়িতে এসে ঋণের টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করাসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

এ সময় তিনি মেয়ের বিয়ের পর ঋণের টাকা ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন এবং তাদের চলে যেতে বলেন। এছাড়া এনজিওর লোকজন ছেলে পক্ষকে বিয়ে না দিয়ে চলে যেতে বলে। পরে স্থানীয় লোকজন ছেলে পক্ষকে অনেক অনুরোধের পরও তারা চলে যায়।