বিশ্বের তরুণ নেতাদের তালিকায় স্থান পেলেন মাশরাফি

প্রতি বছর ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম বাণিজ্য, স্বাস্থ্যসেবা, শাসনব্যবস্থাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য বেছে নেয় ‘ইয়াং গ্লোবাল লিডার্স’। যাদের বয়স ৪০ বছরের কম, তারা বিবেচিত হয়ে থাকেন এই সম্মাননার জন্য। ২০২১ সালে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নির্বাচিত করা হয়েছে ১১২ জনকে। বিশ্বের তরুণ নেতাদের এই তালিকায় স্থান পেয়েছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা।

আগের দিন প্রকাশিত তালিকায় মাশরাফিসহ আছেন দক্ষিণ এশিয়ার দশ জন। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক এই অধিনায়ক একজন রাজনীতিবিদও। সরকারদলীয় এই সংসদ সদস্য সবশেষ জাতীয় নির্বাচনে নড়াইল-২ আসন থেকে নির্বাচিত হন। নিজ এলাকার উন্নয়নে তিনি খুবই তৎপর। সেকারণেই ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের স্বীকৃতি মিলেছে তার।

মাশরাফির প্রতিষ্ঠিত ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’ নামের দাতব্য প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম লিখেছে, ‘মাশরাফি বিন মুর্তজা বাংলাদেশের একজন ক্রিকেটার ও বাংলাদেশের জাতীয় দলের সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক। টি-টোয়েন্টি দলেরও অধিনায়ক ছিলেন তিনি। মাশরাফি তিনটি বড় আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের ফাইনালে দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ক্রিকেটের বাইরে তিনি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে নিজ শহর নড়াইলের মানুষের দারিদ্র্য দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য অর্জনের জন্য তিনি “নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন” প্রতিষ্ঠা করেন। সেগুলো হলো- নাগরিকদের জন্য আধুনিক সুযোগ-সুবিধা ও বিশেষ শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করা, নৈতিক ও মানবিক শিক্ষাব্যবস্থা চালু করতে সাহায্য করা, তরুণদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা, সাংস্কৃতিক কার্যক্রম বৃদ্ধি করা, ক্রীড়া বিষয়ক অনুশীলনের সুযোগ তৈরি করা, চিত্রা নদীতে পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন করা এবং নড়াইলকে তথ্য, প্রযুক্তি ও পরিবেশবান্ধব একটি শহরে রূপান্তর করা।’

মাশরাফিই বাংলাদেশের প্রথম ‘ইয়াং গ্লোবাল লিডার’ নন। এর আগে ২০১৬ সালে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলককে নির্বাচিত করেছিল ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম।